বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ০৪:৫৬ পূর্বাহ্ন

প্রধানমন্ত্রীর সভাস্থলজুড়ে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা

অনুসন্ধান ডেক্স
  • প্রকাশিত সময় : শুক্রবার, ২৪ জুন, ২০২২
  • ৫২ পাঠক পড়েছে

অপেক্ষার প্রহর শেষ হতে চলেছে। রাত পোহালেই বহুল আকাঙ্ক্ষিত পদ্মাসেতুর উদ্বোধন। শনিবার সকাল ১০টায় মুন্সিগঞ্জের মাওয়ায় দক্ষিণাঞ্চলের মানুষের স্বপ্নের পদ্মা সেতু উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। উদ্বোধনের পর মাদারীপুরের শিবচরে (কাঁঠালবাড়ী) অনুষ্ঠিত জনসমাবেশে বক্তব্য দেবেন প্রধানমন্ত্রী।

 এদিকে প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে মঞ্চ প্রস্তুতের কাজ শেষ হয়েছে। মঞ্চ সাজানো হয়েছে পদ্মা সেতুর আদলে। মঞ্চের সামনে কাঠ দিয়ে স্প্যান ও পিলার সাজানো হয়েছে। নদী অঞ্চলের মানুষের কথা চিন্তা করে মঞ্চের সামনে পানির ব্যবস্থা করা হয়েছে। সেখানে একটি বড় ও ১০টি ছোট নৌকা শোভা পাচ্ছে। বড় নৌকায় লেখা আছে, ‘আমরা পারি’। ছোট নৌকাগুলোর কোনোটিতে লেখা ‘জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু’। আবার কোনোটিতে বঙ্গবন্ধু কিংবা প্রধানমন্ত্রীর ছবি। কোনো নৌকায় রয়েছে বাংলাদেশের পতাকা আঁকা। দিনের আলো নিভে আসতেই পুরো সভা প্রাঙ্গণ আলোকিত হয়েছে লাল-সবুজ বাতিতে।

প্রধানমন্ত্রীর আগমন উপলক্ষে জনসভাস্থলে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা রয়েছে শিবচরের বাংলাবাজার ঘাট এবং আশপাশের প্রায় তিন কিলোমিটার এলাকা। সভাস্থলের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে কাজ করছে সেনাবাহিনী, র‍্যাব, পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস, সরকারি গোয়েন্দা সদস্যসহ আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

শুক্রবার সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত বাংলাবাজার ঘাট এলাকায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের উপস্থিতি ছিল লক্ষণীয়। দিন গড়িয়ে বিকেল হতে জনসভাস্থল ও আশপাশে বাড়তে থাকে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের উপস্থিতি।

 

এদিকে পদ্মা সেতুর উদ্বোধনকে ঘিরে আনন্দের কমতি নেই মাদারীপুরের মানুষের মধ্যেও। প্রধানমন্ত্রীর সভাস্থলের আশপাশে সকাল থেকেই ভিড় করেছেন এলাকাবাসী। তবে মানুষের এমন আনাগোনায় সতর্ক অবস্থানে রয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে সবাইকে ওই এলাকা থেকে সরিয়ে দেয়া হয়।

বিকেলে সভাস্থল পরিদর্শন করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল সাংবাদিকদের জানান, পদ্মা সেতুর উদ্বোধনকে ঘিরে নিরাপত্তা বিঘ্ন ঘটার শঙ্কা নেই। আমাদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা তাদের কর্তব্য পালন করছেন। আমাদের দলীয় ভলান্টিয়ার টিমও কাজ করছে। প্রয়োজনে আমরা বিজিবি নিয়ে আসব। তাই মানুষের শঙ্কার কোনো কারণ নেই। মানুষের মধ্যে সেতু উদ্বোধনকে ঘিরে যে পরিমাণ উৎসাহ-উদ্দীপনা দেখছি তাতে বৃষ্টি না হলে উপস্থিতি ১০ লাখ ছাড়াবে।

সম্পূর্ণ নিজস্ব অর্থায়নে তৈরি বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় স্থাপনা পদ্মা সেতু। সেতুটির দৈর্ঘ্য ৬.১৫ কিলোমিটার। দ্বিতল এই সেতুর এক অংশ পদ্মা নদীর মুন্সীগঞ্জের মাওয়া প্রান্ত এবং অপর অংশ নদীর শরীয়তপুরের জাজিরা প্রান্তে যুক্ত। একই সঙ্গে ট্রেন ও গাড়ি চলাচলের ব্যবস্থা রয়েছে এ সেতুতে। চার লেন বিশিষ্ট ৭২ ফুট প্রস্থের এ সেতুর নিচতলায় রয়েছে রেল লাইন। এর মাধ্যমে দক্ষিণাঞ্চলের সঙ্গে সারা দেশের রেল যোগাযোগ স্থাপিত হবে। পদ্মা সেতু নির্মাণে মোট ব্যয় হয়েছে ৩০ হাজার ১৯৩ কোটি টাকা।

২০১৫ সালের ১২ ডিসেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মূল সেতুর পাইলিং ও নদীশাসনের কাজ উদ্বোধন করেন। ২০১৭ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর ৩৭ ও ৩৮ নম্বর খুঁটিতে প্রথম স্প্যান বসানোর মধ্য দিয়ে দৃশ্যমান হতে শুরু করে পদ্মা সেতুর কাঠামো। এরপর একে একে সব ধাপ পেরিয়ে পদ্মার বুকে ৪২টি পিলারের ওপর দৃশ্যমান হয়ে ওঠে স্বপ্নের সেতু।

নিউজটি শেয়ার করে আমাদের সাথে থাকার জন্য ধন্যবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর

© All rights reserved © 2021-2022 । কুষ্টিয়া অনুসন্ধান ।
Design and Developed by DONET IT
SheraWeb.Com_2580